জকিগঞ্জ-কানাইঘাটকে বন্যাদূর্গত এলাকা ঘোষণা করার দাবী জানিয়েছেন এড. সালেহ চৌধুরী

মে ১৯ ২০২২, ১১:৩৮

গত কয়েক দিনের প্রবল বর্ষন ও ভারতীয় পাহাড়ী ঢলে জকিগঞ্জের সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর বিভিন্ন স্হানে ডাইক ভেঙ্গে প্রবল বেগে লোকালয়ে পানি ডুকছে।ইতিমধ্যেই সুরমা ও কুশিয়ারার ডাইক ভেঙ্গে প্লাবিত হয়ে গেছে জকিগঞ্জ ও কানাইঘাট। পাকা বুরো ধান, পুকুর ও ফিশারির লক্ষ লক্ষ টাকার মাছ পানিতে তলীয়ে গেছে। অনেক বাড়ি ঘর ডুবেগেছে। সরজমিন তদন্তে জানাগেছে দুই থানার বেশির ভাগ লোক পানি বন্ধী হয়ে পড়েছে। ভারতীয় মনিপুর রাজ্য থেকে প্রবাহিত বরাক নদী হয়ে বাংলাদেশের জকিগন্জ সিমান্তে এসে দু ভাগে বিভক্ত হয়ে সুরমা ও কুশিয়ারা নদীতে রুপান্তরিত হয়েছে। মেঘালয় রাজ্যের পাহাড় থেকে খরস্রোতা লোভা নদী কানাইঘাটে সুরমায় মিলিত হয়েছে।

গত কয়েক দিন থেকে মনিপুর ও মেঘালয়ের পহাড়ে অভীরাম ভারী বৃষ্টি হচ্ছে। এ সবের প্রভাবে সুরমা ও কুশিয়ারা ভাসছে। দ্রুত নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। যে কোন সময় বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রুপ নিতে পারে। সিলেটে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে ইতিমধ্যেই জকিগন্জের বন্যাত্রদের জন্য ১৮ মেট্রিক টন ও কানাইঘাটের জন্য ২২ মেট্রিক টন চাল বরাদ্ব করা হয়েছে। সিলেট বিভাগ উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি এডভোকেট এম এ সালেহ চৌধুরী জকিগঞ্জ ও কানাইঘাটকে বন্যাদূর্গত এলাকা ঘোষণার দাবী জানিয়েছেন। জাতীয় পার্টি সিলেট জেলা ও মহানগর শাখার নেতৃবৃন্দ ও স্হানীয় সামাজিক সংগঠন আলোর দিশারী সমাজকল্যাণ সংস্থা, জকিগঞ্জ ফাউন্ডেশন এর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন। হে আল্লাহ এই বানবাসী মানুষদের তুমি হেফাজত কর। আমরা সবাই যার যার অবস্থান থেকে এই অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াই। বিজ্ঞপ্তি