বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:৩০ অপরাহ্ন

নির্বাচনে বিএনপি যদি আসে তবে তফসিল পুনর্নির্ধারণ হতে পারে-সিইসি

নির্বাচনে বিএনপি যদি আসে তবে তফসিল পুনর্নির্ধারণ হতে পারে-সিইসি

নির্বাচনে বিএনপি যদি আসে তবে তফসিল পুনর্নির্ধারণ হতে পারে-সিইসি

নির্বাচনে বিএনপি যদি আসে তবে তফসিল পুনর্নির্ধারণ হতে পারে সিইসি ।

রোববার (২৬ নভেম্বর) নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি যদি আসে তবে তফসিল পুনর্নির্ধারণ হতে পারে। কিন্তু ভোটের তারিখ পরিবর্তন হবে না।

গুঞ্জন আছে ভোটের তারিখ পেছানো হবে, এ বিষয়ে ইসির অবস্থান জানতে চাইলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, এরকম কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। আমিসহ আমাদের মাননীয় কমিশনাররা বলেছেন, যদি বিএনপি নির্বাচনে আসেন এতে যদি প্রয়োজন হয় তফসিলটা রিশিডিউল (পুনর্নির্ধারণ) করা যেতে পারে। ওটাকে নির্বাচন পেছানোর কথা বলা হয়নি। তফসিলটা রিশিডিউল করে তাদের যদি অ্যাকমোডেট করার সুযোগ থাকে সেই জিনিসটা করা হবে। এ কথাটাই আমাদের কমিশনাররা বলেছেন। এটাই আমাদের কমিশনের মতামত।

সিইসি আরও বলেন, সবার মধ্যে যদি সমঝোতা হয় তাহলে আমাদের জন্য জিনিসটা আরও অনুকূল হয়ে ওঠে। আমরা এখনো আশা করি হয়তো ওনারা আসতেও পারেন। যদি আসেন সেটা আমাদের জন্য, সবার জন্য, পুরো জাতির জন্য একটা সৌভাগ্য হবে। কারণ আমরা চাই নির্বাচনটা অংশগ্রহণমূলক হোক। সবাই অংশগ্রহণ করুক।

বিএনপি ভোটে না এলে কী করবেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এগুলো নিয়ে আমি উত্তর দেবো না। বিএনপিকে আমরা আহ্বান জানিয়েছি। একবার নয়, দুবার নয়, পাঁচ বার নয়, দশবার আমন্ত্রণ জানিয়েছি। আমি জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণেও বলেছিলাম সময় ফুরিয়ে যায়নি। এখনো সুযোগ আছে। আমরা সব সময় সংলাপের কথা বলেছি। সব সময় সমঝোতার কথা বলেছি। উৎসবমুখর ও অনুকূল পরিবেশের কথা বলেছি।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ৩০ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর, রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কমিশনে আপিল দায়ের ও নিষ্পত্তি ৫ থেকে ১৫ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ১৭ ডিসেম্বর। রিটার্নিং কর্মকর্তারা প্রতীক বরাদ্দ করবেন ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনী প্রচার চলবে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত। আর ভোটগ্রহণ হবে ৭ জানুয়ারি (রোববার)।

সংবাদ সম্মেলনে ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলম, অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ, জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক একেএম হুমাযূন কবীর, যুগ্ম সচিব মো. ফরহাদ আহাম্মদ খান উপস্থিত ছিলেন।

১২২ বার পড়া হয়েছে।





© All rights reserved © risingsylhet.com
Design BY Web Home BD
ThemesBazar-Jowfhowo