বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ১১:৫৬ অপরাহ্ন

News Headline :
চা বাগানের মেয়ে খায়রুন চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী নাগরিক সেবা নিশ্চিত না করে ট্যাক্স বাড়ানোর লাফালাফি শুভ লক্ষণ নয়- কবীর সোহেল পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং মিয়ানমারকে নিয়ে একটি খ্রিস্টান রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র চলছে-প্রধানমন্ত্রী প্রতিবন্ধী শিশুসন্তানকে বিষ খাইয়ে হত্যার অভিযোগে বাবা ও মাকে গ্রেফতার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে পারে তৃতীয় ধাপে সিলেটের তিন উপজেলায় নির্বাচনে প্রার্থী বেশি বেনজীর আহমেদের সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ বন্দরবাজারে নকল স্বর্ণ দিয়ে প্রতারণা চক্রের ৩ সদস্য আটক রুশ বাহিনী ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভে সরাসরি হামলা করেছে চিনিসহ এক চোরাকারবারিকে আটক
ভারতীয় পণ্য বর্জনের এ আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করছে-বিএনপি

ভারতীয় পণ্য বর্জনের এ আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করছে-বিএনপি

ভারতীয় পণ্য বর্জনের এ আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করছে-বিএনপি

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপিসহ ৬৩টি গণতন্ত্রকামী দল এবং দেশপ্রেমিক জনগণ ভারতীয় পণ্য বর্জনের এ আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করছে।

বুধবার (২০ মার্চ) দুপুরে বিএনপির নয়াপল্টন কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ সংহতি প্রকাশ করেন।

রিজভী বলেন, জনগণের ভোটাধিকার হরণ, গণতন্ত্র হত্যা, গুম—খুন—অবিচার—কুশাসনের জন্য ভারত দায়ী বলে জনগণ মনে করে। ভারত বাংলাদেশের জনগণের পক্ষে নয়, আওয়ামী লীগের পক্ষে। জনগণ তাদের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটাচ্ছেন ভারতীয় পণ্য বর্জন করে। জনগণ স্বতঃস্ফুর্ত প্রতিবাদ জানাচ্ছেন ‘ভারত হটাও’ আন্দোলনের ডাক দিয়ে। নিরস্ত্র মানুষের একটাই ব্রত এখন তারা কষ্টার্জিত পকেটের পয়সায় গণধিকৃত আওয়ামী লীগ সরকারের মদদদাতা ও শক্তির উৎস ভারতের পণ্য কিনবে না। এটা কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি নয়, বাংলাদেশের অধিকার হারা মানুষের স্বতঃস্ফুর্ত আন্দোলন।

রিজভী আরও বলেন, জনগণের সামনে পরিষ্কার যে, গত তিন দশক আওয়ামী লীগ ভারতের সহযোগিতায় নির্বাচনের নামে তামাশা করে আসছে। গত ৭ জানুয়ারি বিনা ভোটে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করেছে। ভারতের সমর্থন মানে ভোট না দিলেও আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করতে পারে। জনগণের সমর্থনের প্রয়োজন হয় না।

তিনি আরও বলেন, সারাদেশের দেশপ্রেমে শাণিত মানুষের এ ভারতীয় পণ্য বর্জনকে আমরা যৌক্তিক মনে করি। সর্বহারা জনগণের এ আবেগকে আমরাও ধারণ করি। আওয়ামী লীগকে জোরপূর্বক ক্ষমতায় বসে থাকতে সহযোগিতাকারী ভারতীয় পণ্য বর্জন হোক মানুষের প্রতিবাদের হাতিয়ার। ভারতীয় পণ্য বর্জন মানে স্বৈরাচার আওয়ামী লীগ সরকারকে বর্জন। কারণ আওয়ামী লীগ একটি ভারতীয় পণ্য। মওলানা ভাসানী বলেছিলেন, ‘পিন্ডির গোলামির জিঞ্জির ছিন্ন করেছি দিল্লির দাসত্ব করার জন্যে নয়। ’ সে চেতনা এখন ছড়িয়ে পড়ছে ঘরে ঘরে, পাশাপাশি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ‘দেশ বাঁচাও, মানুষ বাঁচাও’ স্লোগান এখন জনগণের মুখে মুখে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভারতীয় পণ্য বর্জনের যে ঢেউ দৃশ্যমান তাতে মনে হয় দেশের বিশাল জনগোষ্ঠী ভারতীয় পণ্য বর্জনের পক্ষে দৃঢ় অবস্থান গ্রহণ করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদীন ফারুক, ডা. আব্দুল কুদ্দুস, সহ দপ্তর সম্পাদক মুনির হোসেন ও তাঁতী দলের আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ উপস্থিত ছিলেন।

৯৩ বার পড়া হয়েছে।





© All rights reserved © risingsylhet.com
Design BY Web Home BD
ThemesBazar-Jowfhowo