raising sylhet
ঢাকারবিবার , ২ জুন ২০২৪
  • অন্যান্য
  1. অর্থনীতি
  2. আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আরো
  5. খেলার খবর
  6. গণমাধ্যম
  7. চাকরির খবর
  8. জাতীয়
  9. দেশের খবর
  10. ধর্ম পাতা
  11. পরিবেশ
  12. প্রবাস
  13. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  14. বিজ্ঞান প্রযুক্তি
  15. বিনোদন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাষ্ট্রীয় কোষাগারে অর্থ যোগানদাতাকে নাজেহাল

rising sylhet
rising sylhet
জুন ২, ২০২৪ ৯:৫৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রাষ্ট্রীয় কুশাগারে অর্থ যোগানদাতা এক ব্যবসায়ীকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ও হয়রানি করেছেন দক্ষিণ সুরমা পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা। মোহাম্মদ বদরুল ইসলাম নামের সেই ব্যবসায়ীকে হয়রানি করতে গিয়ে পুলিশ ডিপার্টমেন্টের চেইন অব কমান্ড কেউ কিছুটা লংঘন করেছেন মাঠ পর্যায়ের তিন পুলিশ কর্মকর্তা।যে কারণে এস এমপি’র দক্ষিণ জোনে পুলিশের চেইন অব কমান্ড কিছুটা প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে আছে।

রাষ্ট্রীয় কোষাগারে টাকা জমা দিয়ে বিজিবি’র আটককৃত মালামাল নিলামে ক্রয়কারী সেই ব্যবসায়ীর কাছে ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করেছিলেন তারা। চাঁদা না পেয়ে মাঠ পর্যায়ের পুলিশ কর্মকর্তারা তাদের সিনিয়র অফিসারদের নির্দেশনাকে অমান্য করে পুলিশের চেইন্ড অব কমান্ডকে প্রশ্নের মুখে ফেলে দিয়েছেন। সেই সাথে অপমানও অবজ্ঞা করা হয়েছে ২৫ লক্ষ ৩৩ হাজার ৫৪১ টাকার রাষ্ট্রীয় কোষাগারে যোগান দেয়ার বিপরীতে সোনালী ব্যাংক থেকে প্রদত্ত তিনটি চালানকে, বিজিবি কামান্ডার প্রদত্ত ডেলিভারী চালান ও প্রত্যায়ন পত্রকে।

এছাড়া যেহেতু কোন বাহিনী কর্তৃক আটক মালামাল নিলাম করতে যে কোনো আদালতের অনুমোদনের প্রয়োজন হয়।এক্ষেত্রে নিলামের আদেশ দানকারী আদালতকে অপমান করা হয়েছে বলে প্রতিয়মান হচ্ছে।

এব্যাপারে দক্ষিণ সুরমা পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই দিবাংশু পালের বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন,বদরুলের কোন মাল তিনি আটক করেননি। চেইন অব কমান্ড লংঘণ সম্পর্কে তিনি বলেন, সিনিয়র অফিসার গনের নির্দেশনা মত কাজ করেছেন, বিভিন্ন সরকারী দফতরের কাগজ অবমূল্যায়ন সম্পর্কে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।

এস এমপি’র দক্ষিণ জোনের উপ পুলিশ কমিশনার (অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত) মিঃ সুহেল রেজার বক্তব্য চাইলে তিনি প্রথমে বিব্রতবোৎ করেন,এক পর্যায়ে তিনি তাঁর ভাষায় বলেন,’আমাদেরকে এখানে জিরো করে রাখা হয়েছে পদোন্নতি পরবর্তী পদায়নের অপেক্ষা করে সময় কাটিয়ে দিচ্ছি,প্রদায়ন হয়ে গেলে চলে যেতে পারলেই বাঁচি ‘।

চরম ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ও পুলিশী হয়রানির শিকার ব্যবসায়ী বদরুল ইসলাম তাকে হয়রানি সহ ১০ লক্ষ টাকা ঘুষ দাবী এবং না পেয়ে নিলামে খরিদকৃত চিনিকে চোরাচালানের মাল আখ্যায়ীত করে মামলা দিয়ে আর্থিক ক্ষতিসহ অপরাপর বিষয়গুলোর প্রতিকার চেয়ে আবেদন করেছেন রাষ্ট্রের বিভিন্ন দপ্তরে। ব্যবসায়ী বদরুল ইসলাম প্রথমে অভিযোগ করেছেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার বরাবরে গত ১৪ মে। ২১ মে অভিযোগ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে,এবং সর্বশেষ অভিযোগ করেছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জন নিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিবের কাছে গত ২৩ মে।

সূত্র – বাংলার বারুদ

আরও পড়ুন—http://সিলেটে বিজিবির নিলামের চিনির গাড়ি আটক: দশ লক্ষ টাকা ঘুষ দাবী

১৩০ বার পড়া হয়েছে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।