শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০১:২০ পূর্বাহ্ন

News Headline :
চা বাগানের মেয়ে খায়রুন চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী নাগরিক সেবা নিশ্চিত না করে ট্যাক্স বাড়ানোর লাফালাফি শুভ লক্ষণ নয়- কবীর সোহেল পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং মিয়ানমারকে নিয়ে একটি খ্রিস্টান রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র চলছে-প্রধানমন্ত্রী প্রতিবন্ধী শিশুসন্তানকে বিষ খাইয়ে হত্যার অভিযোগে বাবা ও মাকে গ্রেফতার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে পারে তৃতীয় ধাপে সিলেটের তিন উপজেলায় নির্বাচনে প্রার্থী বেশি বেনজীর আহমেদের সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ বন্দরবাজারে নকল স্বর্ণ দিয়ে প্রতারণা চক্রের ৩ সদস্য আটক রুশ বাহিনী ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভে সরাসরি হামলা করেছে চিনিসহ এক চোরাকারবারিকে আটক
রুমা থানায় দায়ের করা মামলায়,কেএনএফের আরও ৪৮ সদস্য কারাগারে

রুমা থানায় দায়ের করা মামলায়,কেএনএফের আরও ৪৮ সদস্য কারাগারে

রুমা থানায় দায়ের করা মামলায় মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) বিকেল ৪টায় তাদের বান্দরবান চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তোলা হয়।আদালত বান্দরবানে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) আরও ৪৮ সদস্যকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন ।

এর আগে পুলিশের কড়া নিরাপত্তায় বান্দরবান সদর থানা থেকে তিনটি বাসে তাদের আদালতে আনা হয়।

সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নাজমুল হোছাইন এই আদেশ দেন।

বান্দরবান সদর কোট পুলিশ পরিদর্শক একে ফজলুল হক জানান, সকালে একজন, দুপুরে দুই দফায় মোট ৫১ জনকে আদালতে তোলা হয়। আদালত তাদের কারাগারে পাঠিয়েছেন।

এদিকে একই দিন বিকেলে থানচি থানার মামলায় ভানুনুন নুয়ান বম, জেমিনিউ বম ও আমে লনচেও বমকে আদালতে তোলা হলে আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

তিনি আরও জানান, সোমবার কেএনএফের দুজনকে আদালতে তোলার পর কারাগারে পাঠানো হয়েছিল। সব মিলিয়ে গত দুদিনে কেএনএফের ৫৪ জনকে আদালতে তোলার পর কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বান্দরবানের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হোছাইন মো. রায়হান কাজেমী জানান, এই পর্যন্ত ৫৪ জনকে আদালতে তোলার পর কারাগারে পাঠানো হয়েছে এবং জেলাজুড়ে সর্বত্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

বান্দরবানের রুমা ও থানচি উপজেলার সোনালী ও কৃষি ব্যাংকের তিন শাখায় সশস্ত্র হামলা, অস্ত্র ও টাকা লুটের ঘটনার পর বান্দরবানের দুর্গম পাহাড়ে সন্ত্রাসীদের ধরতে অভিযান চালাচ্ছেন যৌথ বাহিনীর সদস্যরা। অভিযানে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, আর্মড পুলিশের পাশাপাশি সেনাবাহিনীর সদস্যরা একসঙ্গে অভিযান চালাচ্ছেন।

জেলার রুমা, রোয়াংছড়ি ও থানচি উপজেলার দুর্গম পাহাড়ে এ অভিযান চলছে। অভিযানে ঢাকা থেকে নিয়ে আসা হয়েছে চারটি সাঁজোয়া যান এপিসি। এ ছাড়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য সংখ্যা আরও বাড়ানো হয়েছে।

হঠাৎ করে সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের তৎপরতা বেড়ে যাওয়ায় জেলাজুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে, সাধারণ মানুষ এখনো আতঙ্ক-উৎকণ্ঠার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে।

৭০ বার পড়া হয়েছে।





© All rights reserved © risingsylhet.com
Design BY Web Home BD
ThemesBazar-Jowfhowo